মোবাইলে চাকরির আবেদন করার নিয়ম [সরকারি] A to Z

মোবাইলে সরকারি চাকরির আবেদন করার নিয়ম : বেকারত্বের বোঝা প্রতিটি ছাত্রছাত্রীর কাছে পৃথিবীর সবচেয়ে ভারী বোঝা। গ্রেজুয়েশনের সময় যত ঘনিয়ে আসে,  কপালে চিন্তার রেখাটাও তত স্পষ্ট হতে থাকে।

প্রতিদিনই বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে বিভিন্ন ধরনের সরকারি চাকরির নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হচ্ছে । কিন্তু এত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হওয়ার পরও কম্পিউটারের দোকানে যাওয়ার অলসতা চাকরির আবেদনটা আর করা হয়ে ওঠে না। আর প্রতিবার আবেদনে করিয়ে নেওয়ার জন্য তো একটি আলাদা আবেদন ফি আছেই। 

সব মিলিয়ে এই আবেদন করাটা একটা ঝামেলারপূর্ণ কাজে পরিণত হয়। কিন্তু আমরা চাইলে নিজের হাতে থাকা স্মার্ট ফোনের সাহায্যে চাকরির আবেদনটা খুব সহজেই করে ফেলতে পারি।

বর্তমান ডিজিটালাইজেশনের যুগে শুধু সরকারি চাকরিতে নয় আমার চাইলে আমাদের হাতে থাকা মোবাইল ডিভাইসটি দিয়েই সবধরনের সরকারি বেসরকারি চাকরি আবেদন করতে পারি সহজেই।

এই পোস্টে আমরা খুব সহজে মোবাইলে সরকারি চাকরির আবেদন করার নিয়ম কানুন সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করার চেষ্টা করবো ইনশাল্লাহ।

আরওড়ুন :

মোবাইলে চাকরির আবেদনের বেসিক সমস্যা :

মোবাইল দিয়ে সরকারি চাকরির আবেদন পত্র পূরনে সর্বপ্রথম যে সমস্যাটা হয় সেটা হচ্ছে আমাদের মানসিক ভয়।

মোবাইল বা ল্যাপটপ যেটা হয়েই হোক নিজে আবেদন করার চিন্তা করলে আমাদের মনের মধ্যে যে ভয়টা কাজ করে তা হলো,

“আমি কি সঠিকভাবে আবেদন করতে পারবো? আবেদন করতে কোন ভুল হবে না তো, কোথায় কোন তথ্য দিতে হবে আমি তো জানি না ইত্যাদি ইত্যাদি”

এছাড়াও আরও কিছু সাধারণ সমস্যা হয়, সেগুলো হলো:

  • আবেদন পত্রের চাহিদা অনুযায়ী ছবি ও  স্বাক্ষর Resize করা।
  • পাসপোর্ট সাইজ ছবি না থাকা।
  • আবেদনের পূর্ব অভিজ্ঞতা বা আবেদন করার পদ্ধতি সম্পর্কে সঠিক জ্ঞান না থাকা ইত্যাদি।

এই আলোচনায় আপনার এই সকল সমস্যা গুলোর সমাধান আমরা বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করার চেষ্টা করব।

যাতে নিজে নিজে সরকারি চাকরির আবেদন করার ভয়টা আপনার দূর হয়।

এই পোস্টের দিকনির্দেশনা অনুসরণ করে আপনি খুব সহজেই নির্ভুলভাবে সরকারি যেকোন চাকরির আবেদন ফরম পূরন করতে পারবেন।

তাহলে কথা আর না বাড়িয়ে আসুন দেখি কিভাবে সরকারি চাকরিতে আবেদন করবেন।

আরও পড়ুন : দরখাস্ত লেখার নিয়ম ও নমুনা ২০২৪ [Updated নিয়ম]

সরকারি চাকরির জন্য ছবির সাইজ করার নিয়ম :

যেহেতু মোবাইলে আবেদন করার ক্ষেত্রে ছবি ও স্বাক্ষর Resize করাটাই আমাদের প্রধান সমস্যা গুলোর মধ্যে অন্যতম।

তাই প্রথমেই এই বিষয়টির সমাধান করব।

যে কোন সরকারি চাকরিতে আবেদন করার সময় যে জিনিস গুলো অবশ্যই লাগবে তার মধ্যে অন্যতম হলো ৩০০ * ৩০০ পিক্সেলের একটি পাসপোর্ট সাইজ ছবি।

এবং ৩০০ * ৮০ পিক্সেল সাইজের সাদা কগজের উপর স্বহস্তে লিখিত একটি স্বাক্ষর বা আপনার নাম।

এই ছবি এবং স্বাক্ষর রিসাইজ করার কাজটি দুই ভাবে করা যায়।

  1. ওয়েবসাইটের মাধ্যমে।
  2. এপসের মাধ্যমে।

আপনাদের সুবিধার জন্য আমরা উভয় মাধ্যম দিয়েই ছবি রিসাইজ করা দেখাবো।

ওয়েবসাইটের মাধ্যমে:

আপনার কাছে যদি পাসপোর্ট সাইজের ছবি থাকে তাহলে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ছবি এবং স্বাক্ষর রিসাইজ করাটাই বেশি উত্তম এবং সময় সশ্রয়ী।

এর জন্য প্রথমেই আপনাকে প্রথমে আপনাকে ছবি এবং স্বাক্ষরের স্পষ্ট ছবি মোবাইলের মাধ্যমে উঠিয়ে নিতে হবে।

এবং শুধু মাত্র ছবি এবং স্বাক্ষর বাদে বাকি অংশ ক্রপ করে বাদ দিয়ে দিতে হবে।

অতঃপর https://www.simpleimageresizer.com/ এই ওয়েবসাইটে গিয়ে Select Image এ ক্লিক করে আপনার ছবি বা স্বাক্ষরটি আপলোড করতে হবে।

তারপর Define the new size of your image using থেকে Dimensions (px) ক্লিক করতে হবে। তারপর Keep aspect ratioকে আনটিক করে ছবির ক্ষেত্রে width এবং height ৩০০*৩০০ এবং স্বাক্ষরের ক্ষেত্রে ৩০০*৮০ করে দিতে হবে ।

সর্বশেষ Resize বাটনে ক্লিক করে পিকচারের নাম সহ গ্রিন বক্সের মধ্যে থাকা Download – এ ক্লিক করলে ছবি বা স্বাক্ষরটি ডাউনলোড হয়ে যাবে।

এপসের মাধ্যমে:

এপসের মাধ্যমে ছবি এবং স্বাক্ষর রিসাইজ করার জন্য পূর্বের মতই সাদা কাগজের উপর লিখা আপনার স্বাক্ষর এবং পাসপোর্ট সাইজের ছবি আপনার স্মার্ট ফোনের ক্যামেরা দিয়ে সুন্দর করে তুলে নিতে হবে।

তারপর গ্যালারিতে গিয়ে ছবি এমন ভাবে ক্রপ করবেন যাতে স্বাক্ষর বা ছবি ছাড়া অন্য কোন অংশ না থাকে।

আর স্বাক্ষরের ক্ষেত্রে স্বাক্ষর বা নাম ছাড়া বাকি অংশ ক্রপ করে কেটে বাদ দিয়ে দিবেন ।

তারপর প্লে স্টোরে গিয়ে pixelab লিখে সার্চ করে Apps টা ইন্সটল করে নিন। এবং এপসটি একবার ওপেন করে নিয়ে ক্লোজ করে দিন।

এবার গ্যালারিতে গিয়ে আপনার তোলা পাসপোর্ট সাইজ ছবি ওপেন করে বা চেপে ধরে শেয়ার অপশানে ক্লিক করুন।  তারপর সেখান থেকে pixelab সিলেক্ট  করুন।

তারপর ছবি ক্রপ করার প্রয়োজন হয় তাহলে প্রয়োজন অনুসারে ক্রপ করে নিন আর ক্রপ করা প্রয়োজন না হলে ছবিটি ওই রকমই রেখে টিক মার্কে ক্লিক করে দিন।

এবার এপসের উপরের 3 dot ক্লিক করুন।

সেখান থেকে Export image  এ ক্লিক করে dimensions কে default থেকে custom করে দিন।

এবার  Wight 300 ও Height 300 করে দিয়ে SAVE TO GALLERY বাটনে ক্লিক করে দিয়ে ছবিটি সেভ করে নিন।

একইভাবে স্বাক্ষরও আপলোড করে Width 300  এবং Height 80 করে দিয়ে সেভ করে নিন। ব্যাস আপনার ছবি এবং স্বাক্ষরের কাজ কমপ্লিট। 

মোবাইলে পাসপোর্ট সাইজের ছবি তৈরীর নিয়ম :

কিন্তু আপনার কাছে যদি পাসপোর্ট সাইজ ছবি না থাকে তাহলে কি করবেন? আবার কি কম্পিউটারের দোকানে গিয়ে পাসপোর্ট সাইজের ছবি বানিয়ে আনবেন? আপনাকে এত ঝামেলায় যেতে হবেনা আপনি নিচে দেওয়া আমাদের নির্দেশনা অনুসরণ করুন। তাহলেই আপনার কাজ হয়ে যাবে।

আপনার কাছে যদি পাসপোর্ট সাইজের কোন ছবি না থাকে। তাহলে আবেদন পত্রে ব্যবহার করার জন্য আপনার মোবাইল দিয়ে পরিপাটি লুকে আপনার একটি সুন্দর ছবি উঠিয়ে নিন। অথবা পূর্বে থেকেই আপনার মোবাইলে যদি সুন্দর ও পরিপাটি কোন ছবি থেকে থাকে তাহলে সে ছবিটি গ্যালারিতে গিয়ে মাথা ও কাধে কিছু অংশ রেখে বাকিটা ক্রপ করে বাদ দিয়ে দিন।

অর্থাৎ পাসপোর্ট সাইজের ছবিতে যতটুকু রাখা হয় আরকি।

তারপর remove.bg এই লিংকে গিয়ে Upload Image এ ক্লিক করুন। তারপর ক্রপ করে নেয়া সে ছবিটি আপলোড করুন।

ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভ না হওয়া পর্যন্ত একটু অপেক্ষা করুন। ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভ হয়ে গেলে Download এ ক্লিক করে ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভ হওয়ার png ছবিটি ডাউনলোড করে নিন।

তারপর Pixelab এপস ওপেন করে new text কে ডিলিট আইকনে ক্লিক করে ডিলিট করে দিন।

মোবাইলে চাকরির আবেদন

এইবার ডিলিট আইকনের উপর থাকা ” + ” আইকনে ক্লিক করে from gallery সিলেক্ট  করে ডাউনলোড করা png ছবিটি আপলোড করুন।

মোবাইলে সরকারির আবেদনের নিয়ম

এবার ছবিতে দেখানো বৃত্ত ধরে কোনাকুনি নিচের দিকে টেনে ছবি টি পুরো অংশ জুড়ে করে নিন। এবং ছবির পজিশণের উপর ভিত্তি করে প্রয়োজন হলে রি-এরেঞ্জ করে নিন।

সরকারি চাকরির আবেদনের নিয়ম

তারপর নিচের ছবিতে দেখানো অংশে ক্লিক করুন। তারপর বাম সাইডের দিকে থাকা color এ ক্লিক করুন।

মোবাইল দিয়ে চাকরির আবেদন

এবার  Color ও Gradient অপশন থেকে Color এর উপর ক্লিক করে সাদা বা আকাশী কালার যেকোন একটি কালার সিলেক্ট করে টিক মার্কে ক্লিক করে দিন।

এবার উপরের 3 dot ক্লিক করুন।

সরকারি চাকরির আবেদন পদ্ধতি

সেখান থেকে Export image  এ ক্লিক করে dimensions কে default থেকে custom করে দিন।

এবার  Wight 300 ও Height 300 করে দিয়ে SAVE TO GALLERY বাটনে ক্লিক করে দিয়ে ছবিটি সেভ করে নিন।

সরকারি চাকরির আবেদন করতে কি কি লাগে :

সাধারণত সরকারি চাকরির আবেদন করতে তেমন কোন কাগজ পত্রের প্রয়োজন হয় না। যেহেতু এখন চাকরির আবেদন অনলাইনের মাধ্যমেই করা যায় তাই আবেদন করার সময় কোন কাগজ পত্র জমা দিতে হয় না। তবে চাকরির আবেদন ফরম পূরণের সময় কিছু তথ্যের প্রয়োজন হয় যার জন্য কিছু কাগজ পত্র আবেদন করার সময় আপনার কাছে থাকা উত্তম।

তবে আপনার শিক্ষাগত সকল তথ্য যদি আপনার স্বরণে থাকে তাহলে কোন কাগজ পত্র ছাড়াই সরকারি চাকরিতে আবেদন করতে পারবেন।

তবুও সরকারি চাকরির আবেদন করতে যে যে জিনিস গুলো অবশ্যই কাছে রাখা উচিত তা হলো :

  • পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
  • স্বাক্ষর।
  • সকল শিক্ষা সনদ পত্রের কপি।
  • জাতীয় পরিচয় পত্র বা জন্মনিবন্ধন।

আরও পড়ুন : ২০২৪ সালে সরকারি চাকরিতে কি কি কাগজ লাগে

মোবাইলে সরকারি চাকরির আবেদন করার নিয়ম :

আমরা চাকরির আবেদনের প্রধান যে সমস্যা ছিল তার সমাধান করে ফেলেছি। এবার মোবাইলে সরকারি চাকরির আবেদন করার নিয়ম অর্থাৎ কিভাবে চাকরির আবেদন ফরম পূরন করতে হবে তা দেখব।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বিসিএস থেকে শুরু করে সেনাবাহিনী, পুলিশ সহ সব ধরনের সরকারি  চাকরির আবেদন প্রায় একই নিয়মে করতে হয়।

এখানে আমরা চলমান একটি সরকারি চাকরির আবেদন প্রক্রিয়া আপনাদের কে করে দেখাবো।

আরও পড়ুন : আধুনিক বাংলা সিভি লেখার নিয়ম | সর্বশেষ নিয়মানুসারে

চালুন শুরু করি!

প্রথমে আমরা আমাদের স্মার্ট ফোনের যে কোন একটি ব্রাউজার ওপেন করবো (আমি গুগল ক্রম ব্যবহার করবো। আপনারা চাইলে আপনাদের পছন্দ মত ব্রাউজার ব্যবহার করতে পরেন।

এরপর আমরা সার্কুলার থেকে প্রাপ্ত আবেদন লিংক প্রবেশ করবো।

আবেদন লিংকে প্রবেশ করার পর আপনার সামনে  Advertisement এবং Application Form (Click here to Apply Online) লিখা ২ টি অপশন যুক্ত একটি পেজ ওপেন হবে।

সেখান থেকে Application Form এ ক্লিক করলে সে  মন্ত্রণালয়ে যে যে পোস্ট লোক নিচ্ছে তার একটি তালিকা প্রদর্শীত হবে।

সেখান থেকে আপনি যে পোস্টে আবেদন করতে চাচ্ছেন সে পোস্টের পাশে থাকা বৃত্ত পূরণ করে  নিচে থাকা next বাটনে ক্লিক করতে হবে।

যদি বৃত্ত পূরনের অপশন না থাকে তাহলে যে পোস্টে আবেদন করতে চাচ্ছেন তার উপর ক্লিক করলেই পরবর্তী ধাপে নিয়ে যাবে।

পরবর্তী পেজে Alljobs Premium Member কিনা সেটা জানতে চাওয়া হবে প্রিমিয়াম মেম্বার হলে Yes না হলে No সিলেক্ট করে Next বাটনে ক্লিক করতে হবে।

[Alljobs Premium ফিচারটি অত্যন্ত প্রয়োজনীয় একটি ফিচার। আপনার যদি অনেক চাকরিতে আবেদন করার প্রয়োজন হয় তাহলে অবশ্যই আপনার Alljobs এর Premium মেম্বার হওয়া উচিত। কারণ All Jobs তার Premium মেম্বারদের ছবি স্বাক্ষর সহ সকল তথ্য সংরক্ষণ করে রাখে। যার ফলে পরবর্তী আবেদনে নতুন করে আর তথ্য দেওয়ার প্রয়োজন হয় না। তাই আপনি পরবর্তীতে ২ মিনিটের মধ্যেই যে কোন চাকরিতে আবেদন করতে পারবেন]

সরকারি চাকরির আবেদন ফরম পূরণের নিয়ম :

এবার আপনার সামনে একটি আবেদন ফর্ম ওপেন হবে। সেটি পুরোটা একবার মনোযোগ সহকারে পড়ে নিন।

তারপর আবেদন কারীর নাম থেকে শুরু করে পিতার নাম মাতার নাম সহ ফর্মে চাওয়া সমস্ত তথ্য সঠিক ভাবে পূরণ করুন।

মনে রাখবেন লাল স্টার মার্ক দেয়া বা লাল কালারের বক্স গুলো অবশ্যই আপনাকে পূরণ করতে হবে।

লাল স্টার মার্ক বা লাল কালারের বক্স তথ্য গুলো ছাড়া অন্য কোন তথ্য না দিলেও কোন সমস্যা হবে না।      

আপনার যদি কোটা থেকে থাকে তাহলে উক্ত কোটা সিলেক্ট করে দিবেন।

আর যদি কোটা না থাকে তাহলে No  Quota সিলেক্ট দিয়ে দিবেন।

সঠিক ভাবে সমস্ত তথ্য দিয়ে ফর্ম পূরণ করা হয়ে গেলে পুনরায় আবার তথ্য গুলো যাচাই করে নিন।

সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে। ওই পেজে যদি ছবি ও স্বাক্ষর  আপলোড দেয়ার অপশন থাকে তাহলে ছবি ও স্বাক্ষর আপলোড দিয়ে captcha বা  validation code পুরনো করে  Submit এ ক্লিক করে আবেদন সম্পূর্ণ করুন।

Note: আবেদন ফরমের নিচে একটি বক্স বা বৃত্ত দেখতে পারবেন সেখানে বলা হবে উপরে তথ্য গুলো দিয়েছেন তা সঠিক কিনা। সে বক্স বা বৃত্ত অবশ্যই পূরণ করবেন।

আর যদি ছবি ও স্বাক্ষর আপলোড দেয়ার অপশন না থাকে তাহলে নিচের Next অপশানে ক্লিক করুন।

আরও পড়ুন : দরখাস্ত লেখার নিয়ম ও নমুনা ২০২৪ [Updated নিয়ম]

ছবি ও  স্বাক্ষর আপলোড :

Next অপশানে ক্লিক করার পর আপনার সামনে একটি নতুন পেজ ওপেন হবে।

যেখানে ছবি ও স্বাক্ষর আপলোড করতে বলা হবে।

Upload Your Photo বা Picture এর পাশে Choice File এ ক্লিক করে  pixelab থেকে ডাউনলোড দেয়া ৩০০*৩০০ পিক্সেলে আপনার ছবিটি আপলোড করুন।

একইভাবে নিচে Upload Your Signature বা Signature এ ক্লিক করে ৩০০*৮০ পিক্সেলের আপনার স্বাক্ষরটি আপলোড করুন ।

সঠিকভাবে ছবি ও স্বাক্ষর আপলোড করা হয়ে গেলে Submit বাটনে ক্লিক করে আপনার আবেদন সাবমিট করুন।

স্বাগতম,  আপনি সফল ভাবে সরকারি চাকরির আবেদন ফরম পূরন করতে পেরেছেন।

এবার আপনার সামনে একটি পেজ ওপেন হবে যেখান থেকে আবেদন কপি ডাউনলোড বা প্রিন্ট করে নিতে বলা হবে।

Download অথবা print বাটনে ক্লিক করে আবেদন কপি ডাউনলোড করে নিলেই আপনার আবেদনের কাজ শেষ।

চাকরির আবেদন ফর্ম ডাউনলোড :

সরকারি সব চাকরিতে অনলাইনে আবেদন করা যায় না। কিছু কিছু চাকরি রয়েছে যেগুলোতে অনলাইন থেকে ফর্ম ডাউনলোড করে প্রিন্ট দিয়ে হাতে লিখে পূরণ করতে হয়। যেমন: বিআরটিসি ড্রাইভার পদে নিয়োগ, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে নিয়োগ ইত্যাদি।

এই চাকরি গুলোতে আবেদন ফর্ম ডাউনলোড হাতে লিখে পূরণ করে ডাক বা কুরিয়ারের মাধ্যমে নিদিষ্ট মন্ত্রণালয়ে পাঠাতে হয়।

আবেদন ফর্ম ডাউনলোড লিংক : সরকারি চাকরির আবেদন ফর্ম pdf

আবার কিছু কিছু চাকরি আছে যেগুলোতে আবেদন পত্র লিখে আবেদন করতে হয়।

মোবাইলে সরকারি চাকরির আবেদন ফি প্রদান :

প্রতিটি সরকারি চাকরির সার্কুলারে কিভাবে টাকা প্রদান করতে হবে তা উল্লেখ করা থাকে।

সেখান থেকে উল্লেখিত পেমেন্ট পদ্ধতি অনুসরণ করে টেলিটক সিমের মাধ্যমে টাকা পেমেন্ট করলেই আপনার আবেদন টি সম্পূর্ণ হয়ে যাবে।

Applicant’s Copy-তে প্রাপ্ত User Id ব্যবহার করে SMS এর মাধ্যমে পরীক্ষার ফি প্রদান করতে হবে।

প্রথম SMS :

আবেদন ফি প্রদানের উদাহরণ দেখানোর জন্য আমরা পল্লী বিদ্যুৎ নিয়োগ ২০২৩ সার্কুলার এর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডেমো কোড অর্থাৎ PBS এবং ডেমো User Id ব্যবহার করছি।

তবে আপনি যে মন্ত্রণালয়ে আবেদন করবেন তার কোড আলাদা আলাদা হবে।

তাই আবেদন ফি প্রেরণের পূর্বে সার্কুলার থেকে আবেদন ফি প্রদানের নিয়মটি ভালোভাবে দেখে নিন।

PBS<space>User ID লিখে send করতে হবে 16222 নম্বরে

Example: PBS ABCDEF

Reply : Applicant’s Name. Tk. 112/- Will be charged as application fee. Your PIN is 12345678. To pay fee Type : PBS<space>Yes<space>PIN and send to 16222.

দ্বিতীয় SMS:

PBS<space>Yes<space>PIN লিখে send করতে হবে 16222 নম্বরে

Example: PBS Yes 12345678 & send to 16222

Reply :Congratulations Applicant’s Name. payment completed successfully for ……. Application for (Post name) User ID is (ABCDEF) and Password (xxxxx)

বি.দ্র: টাকা পেমেন্টের পর ফিরতি যে ম্যাসেজ প্রদান করা হবে সে ম্যাসেজ গুলো সংরক্ষণ করে রাখবেন।

আর হ্যাঁ আবেদন ফি প্রদান ব্যতিত আপনার আবেদন টি গ্রহণ যোগ্য হবে না।

মোবাইলে আবেদন ফরম পূরন সম্পর্কিত প্রশ্নোত্তর ( FAQ ) :

প্রশ্ন : এই পদ্ধতি অনুসরণ করে কি সব ধরনের সরকারি চাকরিতে আবেদন করা যায়?

উত্তর : জি এই পদ্ধতি অনুসরণ করেই সব ধরনের সরকারি চাকরিতেই আবেদন করতে পারবেন । কারণ  সরকারি সব চাকরির আবেদন প্রক্রিয়া প্রায় একাই।

প্রশ্ন : চাকরির আবেদন ফরম কি বাংলায় পূরণ করা যাবে ?

উত্তর: জি না।  আপনাকে অবশ্যই ইংরেজিতেই ফরম পূরন করতে হবে।

যদি কোথাও বাংলায় লিখতে বলা হয় কেবল সেখানেই বাংলায় লিখতে হবে ।

প্রশ্ন : আবেদন ফরমে ইংরেজি কি Capital Letter  লিখবো নাকি Small Letter এ লিখবো?

উত্তর : এক্ষেত্রে যদি Capital Letter বা Small Letter কিছুই উল্লেখ করা না থাকে তাহলে যে লেটারেই লিখুন না কেন সমস্যা হবে না।

প্রশ্ন : রেজিষ্ট্রেশন কার্ডে যেভাবে, নাম, পিতার নাম, মাতার নাম দেয়া আছে সেভাবেই কি আবেদন ফর্মে লিখতে হবে?

উত্তর : জি রেজিষ্ট্রেশন কার্ডে যেভাবে লিখা আছে সেভাবেই লিখতে হবে।

প্রশ্ন : জাতীয় পরিচয় পত্র ও জন্ম নিবন্ধন নাম্বার দুটোই কি দিতে হবে?

উত্তর : না, দুটোই দিতে হবে না।  যে কোন একটা দিলেই হবে।  তবে আপনি যদি দুটোই দিতে চান তাহলে কোন সমস্যা নেই দিতে পারেন।

প্রশ্ন : Captcha কিভাবে পূরণ করবো ?

উত্তর : Captcha  এর ওই ছোট ছবিটির মধ্যে ইংরেজি ও অংকে যে অক্ষর গুলো লিখা আছে সেগুলো ঠিকঠাক ভাবে পাশের বা নিচের বক্সে লিখলেই হবে।

ঠিক যেভাবে বলতে এখানে বোঝানো হয়েছে captcha ছবিটির মধ্যে যে অক্ষর যে letter এ লিখা থাকবে বাক্সেও সে letter এই সে অক্ষর লিখতে হবে।

একটা capital letter একটা small letter লিখা থাকে বক্সেও একটা capital letter একটা small letter এই সে অক্ষর গুলো লিখতে হবে।

প্রশ্ন : care of ঘরে কি লিখতে হবে ?

উত্তর : care of এর ঘরে আপনার পিতার পূর্ণ নাম অথবা অভিভাবকের নাম লিখতে হবে।

মোবাইলে আবেদন সংক্রান্ত অন্যান্য প্রশ্নোত্তর :

প্রশ্ন : চাকরির আবেদন লিংক কোথায় পাওয়া যাবে?

উত্তর : আপনারা অনেকেই হইতো কনফিউশানে থাকতে পারেন যে চাকরির  আবেদন লিংক বা Url কোথায় পাবো।

আপনার যদি এমন কনফিউশান হয়ে থাকে তাহলে সার্কুলার ওপেন করলেই কিছুটা নিচের দিকে আবেদন লিংক পেয়ে যাবেন ।

বেশিরভাগ আবেদন লিংক  https://abc.teletalk.com.bd এই ধরনের হয়ে থাকে।

প্রশ্ন : আবেদন ফি কি অন্য সিমের মাধ্যমে দেয়া যাবে ?

উত্তর : জি না। প্রায় সকল সরকারি চাকরির আবেদন ফি টেলিটক সিমের মাধ্যমেই দিতে হয়।

যদি টেলিটক সিমের মাধ্যমে টাকা দেয়ার অপশন সার্কুলারে উল্লেখ করা না থাকে।

তাহলে অবশ্যই যে ব্যাংকের বা পেমেন্ট পদ্ধতির মাধ্যমে টাকা দিতে বলা হবে সেই মাধ্যমেই টাকা পেমেন্ট করতে হবে।

প্রশ্ন : রকেট বা বিকাশের মাধ্যমে টাকা আবেদন ফি পেমেন্ট করা যাবে?

উত্তর : না।  মূলত সরকারি চাকরির আবেদন ফি বিকাশ বা রকেট দিয়ে পেমেন্ট করা যায় না।

প্রশ্ন : আবেদন ফরম পূরন করার সময় যদি কোন ভুল হয়ে যায় তবে কি সেটা সংশোধন করা যায়?

উত্তর : জি অবশ্যই সংশোধন করতে পারবেন। আপনি আবেদন সম্পূর্ণ করার পর যে  User Id পাবেন সেটা দিয়ে Log in করলেই সেখানে আবেদন ফরম Edit করার অপশান পেয়ে যাবেন।

প্রশ্ন : চাকরির আবেদন ফরমে ছবি ও স্বাক্ষর যত  kb হওয়ার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। pixelab থেকে ডাউনলোড দেয়া আমার ছবি বা স্বাক্ষর  তার চেয়ে বেশি kb হয়ে গেছে এখন আমি কি করতে পারি ?

উত্তর : আপনার ছবি বা স্বাক্ষরের সাইজ যদি উল্লেখিত সাইজের চেয়ে বেশি হয়ে যায়।

তাহলে আপনি tinyjpg.com এই লিংকে গিয়ে drop your. png or. jpg file here  এ ক্লিক করে pixelab থেকে ডাউনলোড দেয়া ছবি বা স্বাক্ষর টি আপলোড করুন।

তারপর একটু অপেক্ষা করে green color এর ভিতর finished লেখা উঠলে তার পাশে থাকে download এ ক্লিক করে ছবিটি ডাউনলোড করে নিন।

দেখবেন ছবির  কোয়ালিটি ঠিক আছে কিন্তু সাইজ অনেক কমে গেছে।

শেষ কথা :

বাংলাদেশে চলমান সকল সরকারি চাকরিতে ঘরে বসে মোবাইলে মাধ্যমে আবেদন করা যায়। তবে এই বিষয়টি অনেকেরই অজানা। তাই এই আর্টিকেলে আমরা এই আমরা মোবাইলে চাকরির আবেদন করার নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করলাম।

আশা করি এই আলোচনাটি আপনার সরকারি চাকরির আবেদন প্রক্রিয়াকে সহজ করবে।

Visited 201 times, 1 visit(s) today

Leave a Comment