কি কি সমস্যা থাকলে পুলিশের চাকরি হয় না; সম্ভাব্য সমাধান

বাংলাদেশ পুলিশে চাকরি দেশের শিক্ষিত বেকার জনগোষ্ঠীর মাঝে সবচেয়ে চাহিদা সম্পন্ন চাকরি গুলোর মধ্যে একটি। বাংলাদেশ পুলিশ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কর্তৃক নিয়ন্ত্রনধীন আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী একটি সংস্থা। বাংলাদেশ পুলিশ তিনটি ধাপে জনবল নিয়োগ দিয়ে থাকে। ১. পুলিশ কনস্টেবল ২. সাব ইন্সপেক্টর ৩. এএসপি। যোগ্যতা সম্পূর্ন প্রার্থীগন মাধ্যমিক পাশ করে সরাসরি কনস্টেবল পদে যোগদান করতে পারেন। সাব ইন্সপেক্টর পদে যোগদানের জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতার শর্ত হচ্ছে স্নাতক বা সম্মান পা এবং বিসিএস পরীক্ষার মাধ্যমে এএসপি পদে যোগ দান করা যায়। এই তিনটি পদে যোগ দানের জন্য শারীরিক ফিটনেস খুব গুরত্বপূর্ন। শারীরিক ফিটনেসহীন প্রার্থীগণ পুলিশে যোগদানে অযোগ্য বলে বিবেচিত হন। এই আর্টিকেলে আমরা কি কি সমস্যা থাকলে পুলিশের চাকরি হয় না এবং এর সম্ভাব্য সমাধান নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো।

আরও পড়ুন :

কি কি সমস্যা থাকলে পুলিশের চাকরি হয় না :

বাংলাদেশ পুলিশে চাকরি শারীরিক যোগ্যতা নির্ভর চাকরি গুলোর মধ্যে একটি। এই চাকরিতে চাকরির আবেদন পত্র পূরণের পর শারীরিক যোগ্যতাকে বেশ গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করা হয়। এই অংশে আমরা কি কি সমস্যা থাকলে পুলিশের চাকরি হয় না এই বিষয়টি নিয়েই আলোচনা করবো। সাথেই থাকুন। 

আরও পড়ুন : কি কি সমস্যা থাকলে সেনাবাহিনীর চাকরি হয় না; সম্ভাব্য সমাধান

চোখের সমস্যা :

বাংলাদেশ পুলিশের সহ সকল সামরিক বাহিনীর নিয়োগের একটি অন্যতম শর্ত হচ্ছে দৃষ্টি শক্তি। পুলিশে চাকরির জন্য আপনার দৃষ্টি শক্তি অবশ্যই ৬/৬ হতে হবে। আপনার চোখের দৃষ্টি শক্তি যদিও ৬/৬ এর নিচে হয় তাহলে আপনি বাংলাদেশ পুলিশে যোগদান করতে পারবেন না। আপনার চোখের দৃষ্টি শক্তি ঠিক আছে কিনা তা পরীক্ষার জন্য আপনি একজন ভালো চোখের ডাক্তারের কাছে যেতে পারেন। যদি আপনার দৃষ্টি শক্তির সমস্যা থেকে থাকে তাহলে তিনি আপনাকে যথাযথ চিকিৎসা বলে দিবেন।

কানের সমস্যা :

আপনার কানে যদিও কোন রোগ বা সমস্যা থাকে তাহলে আপনি বাংলাদেশ পুলিশে যোগদানের অযোগ্য বলে বিবেচিত হবেন। অনেকের কানের পর্দা ফাটা, ছেড়া ইত্যাদি সমস্যা থাকে। আবার অনেকের কান থেকে পুজের মত তৈলক্ত জাতীয় পদার্থ বের হয়। আপনার যদিও এমন কোন সমস্যা থাকে তাহলে আপনি পুলিশের নিয়োগ মাঠে বাদ পড়ে যাবেন। 

তাই আপনার কানে যদি এমন কোন সমস্যা থাকে তাহলে আর দেরি না করে একজন ভাল কান বিশেষজ্ঞ দেখানোর পরামর্শ রইলো।

নাকের সমস্যা :

পুলিশের নিয়োগ মাঠে মেডিক্যাল করার সময় নাকে কোন সমস্যা আছে কিনা সেটা দেখা হয়। তাই আপনার নাকে যদি অতিরিক্ত মাংস বাড়ে যেটাকে পলিপাস বলা হয়। তাহলে আপনি মেডিক্যালে বাদ পড়ে যাবেন। তবে যেহেতু পলিপাস ঔষুধ এবং অস্ত্রপাচার উভয় মাধ্যমেই দূর করা যায় তাই এটা নিয়ে বেশি উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই। আপনি ভালো কোন নাক কান গলা বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের সাথে দেখা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেন।

নকনি :

নিয়োগ মাঠে প্রাথমিক পর্যায়ে বাদ পরার অন্যতম কারণ গুলোর মধ্যে একটি হলো নকনি। দুই পায়ের গোড়ালি একত্র করে পায়ের অগ্রভাগকে ‘V’ আকৃতি করার পর যদি দুই হাটু লেগে যায় তাহলে সেটিকেই মূলত নকনি বলা হয়। আপনি যখম পুলিশের নিয়োগ মাঠে যাবেন তখন বেসিক স্কেনিং-এর সময়ই আপনার নকনি আছে কিনা সেটা দেখা হবে। আপনার যদি দুই হাটু লেগে যাওয়ার সমস্যা থাকে তাহলে আপনি অবশ্যই অবশ্যই মাঠে বাদ পড়ে যাবেন।

নকনি মূলত দৌড়ের সময় সমস্যা সৃষ্টি করে তাই প্রতিটি সামরিক বাহিনীতে যোগ দানের সময় এটি পরীক্ষা করা হয়। তবে খুশির সংবাদ হচ্ছে নকনি খুব সহজেই অল্প সময়ের মধ্যে ঠিক করা যায়। নকনি সার্জারি এবং ব্যায়ামের দুই ভাবেই দূর করা যায়। তবে ব্যায়ামের মাধ্যমে দূর করাই বেশি উত্তম। এই ক্ষেত্রে রাতে ঘুমানোর সময় দুই পায়ের মাঝে বালিশ বা শক্ত কিছু দেওয়া সহ বেশ কিছু ব্যায়াম রয়েছে। এক্ষেত্রে আপনি ভালো কোন জিমনেশিয়ামের সাহায্যও নিতে পারেন অথবা ইউটিউব দেখে বাড়িতেও ব্যায়ামের মাধ্যমে তা সমাধান করত্র পারেন। আপনি ইউটিউবে একটু খোঁজা খুজি করলেই এই রিলেটেড অনেক ভিডিও পেয়ে যাবেন। 

কুনি পাঁকা সমস্যা:

বিভিন্ন কারণে আমাদের পায়ের এবং হাতের বৃদ্ধা আঙুলে কুনি পাঁকা সমস্যা হয়ে থাকে। তবে বেশিভাগ ক্ষেত্রে পায়ের আঙুলেই এটি বেশি দেখা যায়। আপনার পায়েও যদি কুনি পাঁকা সমস্যা থেকে থাকে তাহলে আপনি ১০০% নিয়োগ মাঠ থেকে বাদ পরবেন। কুনি পাঁকা সমস্যা মূলত আমাদের অবহেলার কারণেই নিরাময় করা সম্ভব হয় না।

কিন্তু এই সমস্যাটি একটু সচেতন হলে খুব সহজেই দূর করা যায়। তাই আপনারও যদি কুনি পাঁকা সমস্যা থাকে তাহলে নিয়োগ মাঠের আগে অতি দ্রুত একজন ভালো মেডিসিন ডাক্তারের সরাপন্ন হন। এবং উঁনার মূল্যবান দিকনির্দেশনা অনুসরণ করুন। কারণ অতি সামান্য এই সমস্যাটি আপনার পুলিশে যোগাদানের স্বপ্নকে ধ্বংস করে দেওয়ার জন্য যথেষ্ট। তাই এখনই সময় থাকতে সচেতন হোন। 

দাঁতের সমস্যা :

আমাদের অনেকের মধ্যেই দাঁতের বিভিন্ন সমস্যা দেখা যায়। দাঁতের বিভিন্ন ধরণের সমস্যার মধ্যে একটি অন্যতম সমস্যা হলো ডেন্টাল কোরিজ বা দাঁত ক্ষয় জটিত সমস্যা। যেটাকে আমরা সহজ ভাষায় পোকা খাওয়া বলি। যদিও দাঁতে পোকা লাগা সম্ভব নয়। আপনার দাঁতে যদি এই সমস্যা থাকে তাহলে আপনি বাংলাদেশ পুলিশে যোগদানের অযোগ্য বলে বিবেচিত হবেন।

তবে চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই। একজন ভালো দন্ত বিশেষজ্ঞ ডাক্তারকে দেখিয়ে এই সমস্যাটি আপনি সমাধান করে নিতে পারেন।

হাতের তালু ঘামা :

হরমোন জনিত সমস্যার কারণে অনেকের হাতের তালু অস্বাভাবিক ভাবে বেশি ঘামতে পারে। অনেকেই এই সমস্যায় ভুগে থাকেন। যদি আপনারও অতিরিক্ত হাতের তালু ঘামার সমস্যা থেকে থাকে তাহলে আপনি পুলিশে যোগদানে অযোগ্য বলে বিবেচিত হতে পারেন।

তবে এই সমস্যাটি নিরাময় যোগ্য। আপনার মধ্যে যদি এই সমস্যাটি থাকে তাহলে আর দেরি না করে দ্রুত একজন ভালো চর্ম ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করুন। 

পাইলস, হার্নিয়া ও শিরা রোগ :

বাংলাদেশ পুলিশে যোগ দিতে না পারার অন্যতম প্রধান কারণ গুলোর মধ্যে একটি পাইলস, হার্নিয়া ও শিরা রোগ। আপনি যদি এই রোগ গুলোতে আক্রান্ত হোন তাহলে মোটামুটি নিশ্চিত আপনি মেডিকেল থেকে বাদ পরে যাবেন। বাংলাদেশ পুলিশ সহ সব ধরনের সামরিক বাহিনীতে যোগ দেওয়ার সময় এই বিষয়টি খুব গুরুত্বের সাথে দেখা হয়। তাই এই রোগ গুলো নিয়ে অবহেলা করার কিছু নেই। কারণ এই রোগ গুলো আপনার পুলিশের যোগদানের স্বপ্নকে পুরোপুরি ধ্বংস করে দিতে পারে।

আপনি যদি এমন রোগে আক্রান্ত হোন তাহলে হতাশ হওয়ার কিছু নেই। এই রোগ গুলো চিকিৎসার মধ্যে নিরাময় করা সম্ভব। তাই আপনি এই ধরণের রোগে আক্রান্ত হলে আর বসে না থেকে দ্রুত একজন ভালো ডাক্তারের পরামর্শ গ্রহণ করুন।

গোপনঙ্গের রোগ :

পুলিশ নিয়োগের মেডিক্যালের সময় গোপনঙ্গের কোন রোগ আছে কিনা সেটা দেখা হয়। গোপনঙ্গে ঘা, রক্ত পড়া, পুঁজ পড়া সহ বিভিন্ন কারণে বিভিন্ন রোগ হয়ে থাকে। যদিও আপনার এমন কোন রোগ থেকে থাকে তাহলে আপনি বাংলাদেশ পুলিশে যোগদানের অযোগ্য বলে বিবেচিত হবেন।

এছাড়াও অনেকের অন্ডকোষে সমস্যা থাকে। যেমন কারো অন্ডকোষ একটি, কারো একটি অনেক ছোট আবার অন্যটি অনেক বড় এই ধরণের যদি কোন সমস্যা থাকে তাহলে আপনি পুলিশে যোগ দিতে পারবেন না।

শরীরে কাঁটা দাগ ও ট্যাটু :

বাংলাদেশ পুলিশের নিয়োগর শর্তবলি সম্পর্কে সবাই ঠিকমত অবগত না হওয়ার কারণে অনেকেই মনে করেন শরীরে কোন কাঁটা বা সেলাই এর দাগ থাকলে পুলিশ সহ সামরিক কোন বাহিনীতে চাকরি করা যায় না।

কিন্তু তাদের এই ধারণাটি সম্পূর্ণ ভুল। হাতে পায়ে বা শরীরে কাঁটা দাগ থাকলেও বাংলাদেশ পুলিশ সহ যে কোন সামরিক বাহিনীতে যোগদান করা যায়। এমনি শুধু কাঁটা দাগই নয় যদি সেলাইয়ের দাগও থাকে তবুও কোন সমস্যা ছাড়াই পুলিশে যোগদান করা যায়।

তবে আপনার শরীরে যদি অনেক বড় পরিমানে কাঁটার এবং সেলায়ের দাগ, কোন প্রকার ট্যাটু কিংবা আবেগে যদি ব্লেড দিয়ে হাত কাটেন বা নিজের বা প্রেমিক প্রেমিকার নাম লিখেন তাহলে আপনি পুলিশে যোগদানের অযোগ্য বলে বিবেচিত হবেন।

কি কি সমস্যা থাকলে পুলিশে চাকরি হয়না

শেষ কথা :

পুলিশ, সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী সহ প্রায় সব ধরনে সামরিক বাহিনীতে নিয়োগের সময় শারীরিক যোগ্যতার বিষয় গুলো খুব গুরুত্বের সাথে দেখা হয়। তার মানে এই না যে আপনি ছোটখাটো কোন ত্রুটি থাকলেই বাদ পরে যাবেন। আবার সবাই কে একই ভাবে স্কেনিং করে না। তাই কেউ যদি নকনির জন্য বাদ পরে তার মানে এই না যে আপনিও শিউর বাদ পরবেন। তাই কি কি সমস্যা থাকলে পুলিশের চাকরি হয় না এই সব চিন্তা না করে পুলিশের যোগদানের জন্য প্রস্তুতি নেওয়াই উত্তম। 

Visited 206 times, 1 visit(s) today

Leave a Comment